হোস্টেলের ছাদে ভূতের উপস্থিতি এবং কক্ষে ছায়া, অজ্ঞান হয়ে ৪ ছাত্রী হাসপাতালে!

ঐতিহ্যগতভাবে মানুষ আজও ভূত-প্রেতে বিশ্বা’স করেন। বিশ্বা’স করে বলেই ভূত-প্রেত নিয়ে গল্প লেখা এবং গল্প শোনা থেমে নেই।

এবার বরিশালের রূপাতলীর জমজম নার্সিং ইন্সটিটিউটের চার ছা’ত্রী হোস্টেলে ভূত আতঙ্কে অ’জ্ঞান ও অ’সুস্থ হ‌য়ে হাসপাতা‌লে ভ‌র্তি হ‌য়ে‌ছেন। অচেতন অবস্থায় শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে তাদের শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়।

তারা হলেন নগরীর রূপাতলীর জমজম নার্সিং ইন্সটিটিউটের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সেতু দাস ও জামিলা আক্তার এবং প্রথম বর্ষের বৈশাখী আক্তার ও তামান্না আক্তার। ওই ইন্সটিটিউটের কয়েকজন শিক্ষার্থী জানান, নার্সিং ও ম্যাটস্ অনুষদের ছা’ত্রীদের হোস্টেলে থাকা বাধ্যতামূলক। ইন্সটিটিউটের পঞ্চ’ম তলায় ম্যাটস্ এবং ষষ্ঠ তলায় ছা’ত্রী থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। বেশ কিছুদিন ধরে আবাসিক ছা’ত্রীদের কেউ কেউ রাতের বেলা ছাদে হাঁটাহাঁটির শব্দ শুনতে পান!

আবার কখনও কক্ষের মধ্যে অস্বাভাবিক ছায়া দেখতে পান। বিষয়টি ওই হোস্টেলে বসবসকারী সকল ছা’ত্রীর মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এ ঘটনাকে তারা ভূতের উপস্থিতি বলে বিশ্বা’স করেন! শুক্রবার রাতেও হোস্টেলের ছাদে ভূতের উপস্থিতি অনুভব এবং কক্ষে অ’জ্ঞাত ছায়া দেখতে পান তারা! এতে পুরো ছা’ত্রী হোস্টেলে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তখন জামিলাসহ চার ছা’ত্রী অ’জ্ঞান হয়ে পড়েন। পরে তাদের হাসপাতা’লে ভর্তি করে হোস্টেলের বাবুর্চি মালেকা বেগম।

ইন্সটিটিউটের প্রভাষক জালিস মাহমুদ জানান, আবাসিক ছা’ত্রীদের ভীতি দূর করতে কাউন্সিলিংয়ে ব্যবস্থা করা হয়েছিল। গত বৃহস্পতিবার গভীর রাত পর্যন্ত ছাদে নজরদারি করা হয়। হুজুর এনে মিলাদ-দোয়ার আয়োজন করা হয়েছে। এরপরও তাদের ভ’য় কাটেনি।হাসপাতা’লে চিকিৎসাধীন ছা’ত্রীদের যথাযথ চিকিৎসা প্রদান ও কাউন্সিলিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান ইন্সটিটিউটের জনসংযোগ কর্মক’র্তা মুন্সি এনাম।

হোস্টেলে চার ছা’ত্রী অ’সুস্থ হয়ে পড়ার খবর পেয়ে কোতোয়ালি মডেল থা’না পু’লিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে। ঘটনাস্থল পরিদর্শনকারী কোতোয়ালি থা’নার উপ-পরিদর্শক রিয়াজুল ইস’লাম জানান, কেন এমন ঘটনা ঘটল, তা ত’দন্ত চলছে। এ ঘটনার পর রাতে ওই হোস্টেলে থাকা ৬০ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে ৪৫জন তাদের নিজ নিজ এবং আত্মীয়-স্বজনের বাসায় চলে যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *